Visiting & make your knowledge https://www.aziz420.com/2023/08/blog-post_1.html

মাসিক হওয়ার টেবলেটর নাম সংক্রন্ত ধারনা গুলো নেই

 স্বাভাবিকভাবে একজন স্বাস্থ্যবতী স্ত্রীলোকের ২৮/২৯ দিন পর মাসিক অথাৎ ঋতুস্রাব হয়। ১৩/১৪ বৎসর বয়স হইতে শুরু করিয়া ৪৫/৫০ বছর বয়স পযন্ত নিয়মিতভাবে এই স্রাব হয়। প্রতি ২৯ দিনের চান্দ্র মাসে ইহা একবার হয়। গভ সঞ্চার হইলে ঋতুস্রাব বন্ধ থাকে।


গভ সঞ্চার নাই অথচ মাসিক বন্ধ থাকিলে ইহাকে রোগ বলিয়া ধরিতে হইবে। অনেকের অল্প দিন পর পর বা নিয়মহীনভাবে মাসিক হইতে দেখা যায়। যৌবনের প্রারম্ভে ও শেষে পযায়ে অনিয়মিত  ঋতুস্রাব রোগ বলিয়া মনে করা হয় না। তবে মধ্যেম বয়সে ইহা দেখা গেলে উহাকে রোগ বলিয়া গন্য করা হয়। 

কারন 

সাধারণতঃ নারীর স্রাব ৪/৫ দিন বতমান থাকে। এই সময়ে যোনিক মাধ্যমে এক পোয়া থেকে দেড় পোয়া রক্ত দেহ থেকে বাহির হইয়া যায়। ২৮/২৯ দিন পর নারীর  এই স্রাব হইয়া থাকে । নানা কারণে এই স্রাব ঠিকমত হয় না। কখনও দেরী হয় কখনও বা দ্রুত হয়।

১। রক্তশূন্যতা একটি অন্যতম কারণ।

২। ডিম্বোকোষ থেকে ডিম্ব নিঃসরণ ঠিকমত হয় না।

৩। হমোনের অভাবে একটি প্রধান করন।

৪। জরায়ু বা ডিম্বকোষের রোগ থেকে হইতে পারে।

৫।দেহের স্বাভাবিক ক্ষমতা, পুষ্টি ও দেহের পূণ গঠনের অভাবে হইতে পারে।

৬।গনোরিয়া, সিফিলিস প্রভৃতি রোগে হইতে পারে।

লক্ষন
১। রক্তস্রাব হঠাৎ বন্ধ হইয়া যায়। ৫০/৬০ দিন হয়তো হয় না। কখনো ২৫/৩০ দিন হয় না।
২। ঋতু শুরু হইলে তাহা ১৫/১৬ দিন ধরিয়া চলে, ঠিক সময় মত বন্ধ হয় না।
৩। কখনো ১৫/২০ দিন বন্ধ থাকিয়া ফোটা ফোটা ঋতু হইতে পারে।
৪। কখনো কখনো ঠিক ঠিক মত না হইয়া নানা ধরনের গোলমাল রোগীর মধ্যে দেখা যায়।
৫। মাসিকের পূবে বা পরে সাদার মত আঠাল স্রাব বাহির হয়।
৬। কখনও ঘুমের অসুবিধা দেখা দেয়। 

চিকিৎসা




* কারণ অনুসারে চিকি
ৎসা করিতে হইবে।

১। ঋতু স্রাবকে নিয়মিত করিবার জন্য Ethinylestrasdiol (ইথিরোইট্রোল) যুক্ত ঔষধঃ
Tab. Stilboesrol (স্টিলবোইসট্রোল ) 0.5mg 
 মাত্রাঃ ১ বড়ি করিয়া দিনে ২বার অথবা২-৩ বড়ি রাত্রে।

২। মাসিক স্রাব কম হইলে  Ethinylestrasddiol (ইথিনিলই্ট্রাাল) যুক্ত ঔষধঃ 
Inj. Menstrogen (মেনসট্রোজেন) 1mg.
মাত্রাঃ ১টিএ্যামপুল ৩-৫ দিন মাসিকের সময় ইনজেকশন দিতে হইবে। 

৩। শরীরে জ্বর বা কোন Infectionথাকিলে- Cephradine  (সফ্রডিল)যুক্ত ঔষধঃ
Cap. Dicef (ডিসেফ)250/500mg  বা,  Cap. Intracef  (ইন্ট্রাসেফ)250/500mg বা, Cap. Avlosef (এ্যাভলোসেফ ) 250/500mg বা, Cap. SK-cef (এসকে -সেফ) 250/500mg বা,  Cap. Sefril (সেফরিল) 250/500mg বা, Lebac (লিব্যাক)   250/500mg  250/500mg  Cap. 250/500mg 
মাত্রাঃ ১টি করিয়া দিনে রাতে৩/৪ বরা ৭ দিন । 

অথবা

Amoxycillin (এমোক্রিলিন) যুক্ত ঔষধঃ 

Cap. Fimoxyl ( ফাইমোক্রিল )250/500mg বা,Cap. Aristomox (এরিসটোমক্র)250/500mg  বা,Cap.SK-Mox (এসকে-মক্র)250/500mg বা,Tab. Bactamox ( ব্যকটামক্র)250/500mg

মাত্রাঃ ১টা করে ৮ ঘন্টা করে পর পর সেব্য ৭ দিন।

৪। মাসেকের পূবে বা পরে আঠাল স্রাব বাহির হইলে ঔষরেধ সহায়ক হিসাবে Metronidazole  (মেট্রোনিডাজল) যুক্ত ঔষধঃ 

      Tab. Amotrex(এ্যামোট্রেক্র) 200/400mg বা,  Tab. Amobin(এ্যামোবিন) 200/400mg বা, Tab. Amodis(এ্যামোডিস)200/400mg

মাত্রাঃ ১টি করিয়া দিনে রাতে২/৩ বরা । 

                                                                     অথবা,

Metronidazole  (মেট্রোনিডাজল) যুক্ত ঔষধঃ 

Inj. Metro I.V(মেট্রো-আই.ভি) বা,Inj. Metro I.V(মেট্রো-আই.ভি)

৫। রোগীর মানসিক ভয় বা উদ্বেগ, উত্তেজনা, উৎকন্ঠার জন্য Diazepam (ডায়াজিপাম) যুক্তযুক্ত ঔষধঃ 

 Tab. Evalin  (ইভালিন)  5mg বা, Tab. Easium  (ইজিয়াম)  5mgবা, Sedil  (সিডিল)  5mg 

মাত্রাঃ ১টি করিয়া দিনে রাতে বরা শুধু রাতে ।  

     অথবা,

Clobazam (ক্লোবাজাম) যুক্তযুক্ত ঔষধঃ Tab.Cositum  (কোজিয়াম) 10 mg বা,  Tab.Frisum (ফ্রিজিয়াম)  10mg 

৬। রক্তহীনতার জন্যঃ Sy.Feridex (ফেরিডেক্র) বা,  Sy.Ferglucon (ফfরগ্লুকোন)
মাত্রাঃ ১/২ চামচ ঔষধ দিনে ২/৩ বার আহারের পর সেব্য। 

 অথবা,

৭। ক্যাপসুল আকারেঃ Cap. Feridex Plus    (ফেরিডেক্র প্লাস) বা,Cap. Ferate plus (ফিরেট প্লাস বা, Cap. Therafeon  (থেরাফিয়ন)

মাত্রাঃ ১টি করিয়া দিনে রাতে  ২ বরা খাওয়ার পর ।

পথ্য বা আনুষঙিক ব্যবস্থা

১। পুষ্টিকর খাবর খাওয়া উচিত। 
২। রোগ জটিল হইবার পূবে চিকিৎকের পরামরশ মোতাবেক চিকিৎসা করা ভাল। 



অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

নটিফিকেশন ও নোটিশ এরিয়া